English Version

প্রতিষ্ঠানের ইতিহাস

বিদ্যালয়টির ইতিহাস

বিদ্যালয়টি ১৯৮৩ সালের মার্চ মাসে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিএডিসি স্টাফ কোয়ার্টারে বিএডিসির সিবিএ সভাপতি খন্দকার আব্দুল আজিজ এর অনুপ্রেরণায় সেসময়ের চেয়ারম্যান বিগ্রেডিয়ার(অবঃ) আ. স. ম. হান্নান শাহ ও সিবিএর নেত্রিত্বের উদ্যোগে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। ড. মোল্লা আজফারুল হক প্রথম প্রধান শিক্ষক ও ৬ জন স্বেচ্ছাসেবক শিক্ষক নিয়ে বিদ্যালয়ের প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু করেন। স্বেচ্ছাসেবক শিক্ষকগণ হচ্ছেন ১। সুরাইয়া বেগম ২। জাহানারা বেগম ৩। সেলিনা বানু ৪। জাকিয়া সুলতানা ৫। আজমেরী বেগম ৬। আমেনা বেগম। ১ম শ্রেণি থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত বিএডিসি’র টিন সেড এর একটি গোডাউনে শ্রেণি কার্যক্রম আরম্ভ করে। ১৯৮৫ সাল থেকে প্রতি বছর একটি করে শ্রেণি বৃদ্ধি করা হয়। স্বেচ্ছাসেবক শিক্ষকদের বিএডিসি’র নিয়োগ কল্যাণ থেকে ৫০০/=(পাঁচশত) টাকা সম্মানী ভাতা দেয়া হত। শ্রেণি কক্ষ বৃদ্ধির জন্য ১৯৮৮ সালে বিএডিসির অর্থায়নে ২য় তলা ভবন নির্মাণ করা হয়। আর্থিক দৈন্যতা কাটিয়ে উঠার জন্য ১৯৮৯ সালে বিএডিসি’র সেসময়ের চেয়ারম্যান ড. এম. শওকত আলী ৮ম শ্রেণির অনুমোদন ও ৯ম শ্রেণি খোলার অনুমতি গ্রহণ করেন। বিদ্যালয়টি প্রথম এমপিওভুক্ত হয় ১৯৯৫ সালে। বিদ্যালয় থেকে প্রথম ১১ জন ছাত্র এস.এস.সি. পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে এবং শতভাগ পাশ করে। বর্তমানে বিদ্যালয়টি বিএডিসি’র চেয়ারম্যান জনাব মোঃ নাসিরুজ্জামান, অতিরিক্ত সচিব, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি জনাব মোঃ মনোয়ারুল ইসলাম সদস্য পরিচালক(ক্ষুদ্রসেচ)বিএডিসি ও যুগ্ম সচিব, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর সরাসরি তত্ত্ববধানে  পরিচালিত হচ্ছে। বিদ্যালয়ের বর্তমান প্রধান শিক্ষক মোঃ মোতালেব খলিফা। বিদ্যালয়টিতে ৩২ জন শিক্ষক ও ৮ জন কর্মচারি কর্মরত আছেন। বিদ্যালয়টি দুই শিফটে পরিচালিত। প্রভাতী পর্বে প্লে থেকে ৩য় শ্রেণি পর্যন্ত বালক-বালিকা, ৪র্থ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত বালিকা ও দিবা পর্বে ৪র্থ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত বালক শিক্ষা গ্রহণ করে।